শনিবার | ১৫ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি | বিকাল ৩:৫৭
Home / সারাদেশ / দু’জেলার মধ্যে চলছে প্রতিহিংসার ঝড়: বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা

দু’জেলার মধ্যে চলছে প্রতিহিংসার ঝড়: বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: নড়াইলের কালিয়া উপজেলা ও নড়াগাতি রুট থেকে গোপালগঞ্জ শহরে অটোবাইক ও মাহিন্দ্র (থ্রি হুইলার) চলাচল বন্ধকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে একে একে ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়া করার পর হামলা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে চাপাইল সেতু পয়েন্টে সংঘর্ষ ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। যে কোন সময় বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা করছে এলাকাবাসী।
জানা যায়, গোপালগঞ্জের মানিকদাহ গ্রামের খলিল বিশ্বাসের ছেলে আনিচ বিশ্বাস, সোহাগ বিশ্বাসসহ আনুমানিক ৩০/৪০ জন লোক যাত্রী ভর্তি ইজিবাইক কালিয়া থেকে গোপালগঞ্জ অভিমুখি স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের বাধা দেয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ইজিবাইক চালকসহ যাত্রী ও এলাকার লোকজন প্রতিবাদ জানায়। গত একমাস যাবত কালিয়া টু গোপালগঞ্জের মধ্যে ইজিবাইক, মাহিন্দ্র চলাচল বন্ধ করে দেয়। আনিচ বিশ্বাস ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে এ হামলা করে। এতে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে সাধারন জনগন নড়াইল, বাগেরহাট, খুলনা ও গোপালগঞ্জের যাত্রী সাধারন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও অফিসগামী সাধারন মানুষ বিপাকে পড়েছে। নড়াগাতি থানার পুলিশ ঘটনা স্থলে এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করলেও। সংঘর্ষেও সূত্র ধরে হাজী লাল মিয়া সিটি কলেজ ও সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজ পড়ুয়া ছাত্র নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পহরডাঙ্গা গ্রামের মাসুদ সিকদারের ছেলে হাজী লাল মিয়া কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী আশিকসহ সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের আরো দুইজন ছাত্রকে কলেজ থেকে বাড়ী ফেরার পথে রশীদ খান ঠাকুর ফাউন্ডেশনের সামনে থেকে আনিচ বিশ্বাসসহ তার লোকজন মারপিট করে।
এ ঘটনায় চাপাইল সেতুর দু’এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে নড়াইল, বাগেরহাট ও খুলনা জেলার একটি অংশের সাথে রাজধানী ঢাকার। নড়াইল, বাগেরহাট ও খুলনা জেলার বড় একটি অংশ গোপালগঞ্জের সীমান্তবর্তী হওয়ায় ওই অঞ্চলের মানুষ ব্যবসা বাণিজ্যসহ তাদের অধিকাংশ কাজই গোপালগঞ্জে করে থাকেন।
স্কুল শিক্ষক যুগোল কিশোর বিশ্বাস ও শেখ শামীম বলেন, চাপাইল সেতু হওয়াতে বিচ্ছিন এ অঞ্চলের সাথে গোপালগঞ্জ, খুলনা, নড়াইল ও বাগেরহাট জেলার মধ্যে যোগাযোগের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের দ্বার উম্মোচিত হয়েছে। এত দিন এ অঞ্চলের শিশুরা গোপালগঞ্জে গিয়ে শিক্ষা গ্রহন করতে পারতো না। এখন তারা সে সুযোগ পাচ্ছে। এছাড়া এলাকার আর্থ সামজিক অবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি মানব সম্পদ উন্নয়ন ও জাতীয় অর্থনীতিতে এ সেতুটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে।
দু’জেলার প্রশাসনের মাধ্যমে দ্রুত সংকট নিরশনের দাবী সাধারন মানুষের। তারা চান সাধারন মানুষের কথা চিন্তা করে দু’জেলার প্রশাসন অতি দ্রুত এ সংকট নিরশনে জোর ভুমিকা রাখবে।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে বাংলাদেশ স্বাস্থ্য এন্ড পরিবেশ মানবাধিকার সাংবাদিক সোসাইটির র‍্যালি

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ স্বাস্থ্য এন্ড পরিবেশ মানবাধিকার ...