শনিবার | ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৯শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি | রাত ৪:৩৪
Home / প্রচ্ছদ / প্রাণের গাজীপুর, ভালোবাসার গাজীপুর………

প্রাণের গাজীপুর, ভালোবাসার গাজীপুর………

মোঃ শাওন সরকারঃ নানা ইতিহাস আর ঐতিহ্যর স্বাক্ষী হয়ে আজও একইভাবে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে প্রিয় গাজীপুর। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য আর সবুজে শ্যামলে ভরা প্রাকৃতিক পরিবেশের অভয়ারণ্য প্রিয় গাজীপুর, আমার গাজীপুর। ইতিহাস ও অন্যান্য তথ্যমতে পাওয়া যায় গাজীপুরের প্রাচীন নানা ইতিহাস। দেশবরেণ্য অনেকের জন্ম প্রাচীন এই জনপথে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী প্রথম প্রধানমন্ত্রী ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ রাজনীতিবিদ বঙ্গতাজ তাজ উদ্দিন আহমেদের জন্ম এই গাজীপুরেই । গাজীপুরের মাটি ও মানুষের প্রাণপ্রিয় নেতা সফল রাজনীতিবিদ, আদর্শ শিক্ষক, সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ আহসান উল্লাহ্‌ মাষ্টার এই গাজীপুরেরই সন্তান। মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শহীদ এডভোকেট ময়েজ উদ্দিন, গাজীপুরের একমাত্র বীর উত্তম উপাধিধারী বীর মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন বীর উত্তম, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মোঃ হাবিব উল্লাহ্‌, ফকির শাহাবুদ্দিন, তাপ আয়ন তত্বের আবিষ্কারক মেঘনাদ সাহা, ঔপনাসিক,সাহিত্যিক ও কলামিষ্ট আবু জাফর শামসুদ্দীন, স্বভাব কবি গোবিন্দ চন্দ্র দাস, ভাওয়াল রত্ন মোঃ নুরুল ইসলাম ( ভাওয়াল রত্ন) সহ অনেক গুণীজনের জন্ম হয়েছে এই গাজীপুরের মাটিতেই।

বিলু কবীরের লেখা ‘বাংলাদেশের জেলা নামকরণের ইতিহাস’ বই থেকে জানা যায়, মহম্মদ বিন তুঘলকের শাসনকালে জনৈক মুসলিম কুস্তিগির গাজী এ অঞ্চলে বসতি স্থাপন করেছিলেন এবং তিনি বহুদিন সাফল্যের সঙ্গে এ অঞ্চল শাসন করেছিলেন। এ কুস্তিগির/পালোয়ান গাজীর নামানুসারেই এ অঞ্চলের নাম রাখা হয় গাজীপুর বলে লোকশ্রুতি রয়েছে। আরেকটি জনশ্রুতি এরকম সম্রাট আকবরের সময় চব্বিশ পরগনার জায়গিরদার ছিলেন ঈশা খাঁ। এই ঈশা খাঁরই একজন অনুসারীর ছেলের নাম ছিল ফজল গাজী। যিনি ছিলেন ভাওয়াল রাজ্যের প্রথম ‘প্রধান’। তারই নাম বা নামের সঙ্গে যুক্ত ‘গাজী’ পদবি থেকে এ অঞ্চলের নাম রাখা হয় গাজীপুর। গাজীপুর নামের আগে এ অঞ্চলের নাম ছিল জয়দেবপুর। এ জয়দেবপুর নামটি কেন হলো, কতদিন থাকল, কখন, কেন সেটা আর থাকল না সেটিও প্রাসঙ্গিক ও জ্ঞাতব্য। ভাওয়ালের জমিদার ছিলেন জয়দেব নারায়ণ রায় চৌধুরী। বসবাস করার জন্য এ জয়দেব নারায়ণ রায় চৌধুরী পীরাবাড়ি গ্রামে একটি গৃহ নির্মাণ করেছিলেন। গ্রামটি ছিল চিলাই নদীর দক্ষিণপাড়ে। এ সময় ওই জমিদার নিজের নামের সঙ্গে মিল রেখে এ অঞ্চলটির নাম রাখেন ‘জয়দেবপুর’ এবং এ নামই বহাল ছিল মহকুমা হওয়ার আগ পর্যন্ত। যখন জয়দেবপুরকে মহকুমায় উন্নত করা হয়, তখনই এর নাম পাল্টে জয়দেবপুর রাখা হয়। উল্লেখ্য, এখনো অতীতকাতর-ঐতিহ্যমুখী স্থানীয়দের অনেকেই জেলাকে ‘জয়দেবপুর’ বলেই উল্লেখ করে থাকেন। গাজীপুর সদরের রেলওয়ে স্টেশনের নাম এখনো ‘জয়দেবপুর’ রেলওয়ে স্টেশন। তবে বিস্তারিত আলোচনায় গেলে বলতেই হয়, গাজীপুরের আগের নাম জয়দেবপুর এবং তারও আগের নাম ভাওয়াল। গাজীপুরকে ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১ মার্চ জেলা এবং ২০১৩ খ্রিস্টাব্দের ৭জানুয়ারী রোজ সোমবার সিটি কর্পোরেশন ঘোষণা করা হয়।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পবিত্র রমজান মাস মানবের জীবনের একটি মূল অধ্যায়…মোঃ শাওন সরকার

মোঃ মুজাহিদুল ইসলামঃ গাজীপুর মহানগরের ৪৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি, অনলাইন ...