শনিবার | ১৫ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি | রাত ৯:০০
Home / আন্তর্জাতিক / ট্রাম্পের মৃত্যুঘড়ি!

ট্রাম্পের মৃত্যুঘড়ি!

পর্দার আড়ালে ২৪.কম নিউজ ডেস্ক!!
নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কোয়ার বিল্ডিংয়ের ছাদে বসানো হয়েছে সুবিশাল একটা ঘড়ি। যেখানে প্রতি মুহূর্তে দেখানো হচ্ছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কী ভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের গাফিলতিতে।

সুবিশাল বিল বোর্ডে রাখা সেই ঘড়ির নীচে লেখা, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় মার্কিন প্রশাসনের গাফিলতির জন্য সংখ্যাটা এমন হতে পারে।
বিল বোর্ডে ওই ঘড়িটি বানিয়েছেন নিউ ইয়র্কের জনপ্রিয় চলচ্চিত্রকার ইউজিন জারেকি। যার নাম দেওয়া হয়েছে, “ট্রাম্পের মৃত্যুঘড়ি”।

সোমবার পর্যন্ত ওই ঘড়ি জানিয়েছে, মার্কিন মুল্লুকে করোনা সংক্রমণে যে প্রায় ৮২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে, তার মধ্যে ৪৮ হাজার মানুষই মারা গিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রশাসনের গাফিলতিতে। আর এক সপ্তাহ আগে মার্কিন মুল্লুকে বাধ্যতামূলক ভাবে সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং চালু করা হলে সোমবার পর্যন্ত অন্তত ৪৮ হাজার মানুষকে করোনা সংক্রমণের শিকার হতে হত না। করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যায় বিশ্বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রই আপাতত শীর্ষে।

ওই ঘড়ি এও জানাচ্ছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশাসন যদি এক সপ্তাহ আগে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিতেন, সেটাই হত বিচক্ষণতার কাজ। কিন্তু প্রশাসনিক গাফিলতির জন্যই আমেরিকায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়েছে অন্তত (৬০) শতাংশ।

পরে তার একটি পোস্টে দুইবারের পুরস্কারজয়ী চলচ্চিত্রকার জারেকি লিখেছেন, করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়া পরেও আমেরিকায় গত (১৬) মার্চ পর্যন্ত সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং বাধ্যতামূলক ভাবে চালু করা হয়নি। স্কুল, কলেজ, অফিস, আদালত খোলা রাখা হয়েছিল। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং চালু করা হয় (১৬) মার্চ। যেটা (৯) মার্চ চালু করা হলে করোনায় এত মানুষের মৃত্যু হত না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। নিউ ইয়র্কের চলচ্চিত্রকার জারেকি সানড্যান্স ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে দুইবারের পুরস্কারজয়ী।

আমেরিকার যে এপিডেমিওলজিস্টের উপর এখন সবচেয়ে বেশি ভরসা হোয়াইট হাউসের, সেই সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফওসিও এপ্রিলে বলেছিলেন, আরও আগে ব্যবস্থা নেওয়া গেলে আমরা আরও অনেককে বাঁচাতে পারতাম।

সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে জারেকি তার পোস্টে লিখেছেন, সঙ্কট মোকাবিলার জন্য আমাদের আরও দায়িত্বশীল নেতৃত্বের প্রয়োজন ছিল। ফলকে নিহত সেনাদের নাম যেমন মনে করিয়ে দেয় কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে যুদ্ধে, তেমনই এই ঘড়িও মনে করিয়ে দিচ্ছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশাসনের গাফিলতির কতটা মাসুল গুনতে হল আমাদের।

পোস্টটি শেয়ার করুন
Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ব্লিনকেনকে উইঘুদের বন্দি শিবির ও নির্যাতন বন্ধের আহ্বান

সম্প্রতি জিনজিয়াংয়ে উইঘুদের প্রতি চীনের অমানবিক আচরণ ও গণহত্যা বলে স্বীকৃতি দিয়েছে ...